default-image

প্রস্তর হূদয় হতে পরিশুদ্ধ জল দেবে বলে

কথা দিয়েছিলে, তাই টলমল ঘর গৃহস্থালি।

প্রণয় নিরীহ চোখে চেয়ে থাকে নির্ভুল আবেগ

রুপোলি ঠমক কবে চমকায় দক্ষিণ প্রয়াসী।

দোর্দণ্ড দুপুর ভাঙ্গে অবিমিশ্র প্রাক্তন রোদন,

ঝুলন্ত শূন্যত্ব ফুঁড়ে তাপতপ্ত খর তরবারি

তৃষ্ণাহত করে তোলে আমাকেই প্রত্যহ যাপনে।

দৃশ্যের রোমাঞ্চ নেই, লুপ্তি মাগে নেপথ্য সম্বিত্

বিভীষণ বায়ু বয় অশেষবিদ্ধ গৃহচত্বরে।

জানি তুমি সিদ্ধিগঙ্গা, সিদ্ধপীঠ ওই উরসিজ,

বেদনা দোসর হয়ে নিখিল শূন্যত্ব দাও ঢেকে

নির্মল জলধারায়, গাঢ় জ্বরে পরান পারদ

থার্মোমিটারের শেষ প্রান্ত ছোঁয়া, নামুক এবার।

জল তুমি দিলে না যে, আমি তাই মরুসারণিক।

বিজ্ঞাপন