default-image

সিলেটের কানাইঘাটের দুই মাইল দূরে গৌরীপুরে ২৬ নভেম্বর ভয়াবহ যুদ্ধ সংঘটিত হয়। জেড ফোর্সের প্রথম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের মুক্তিযোদ্ধারা সিলেট দখলের লক্ষ্যে ২২ নভেম্বর গৌরীপুরে পৌঁছান। কানাইঘাটে অবস্থানরত পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ৩১ পাঞ্জাব রেজিমেন্টের আলফা কোম্পানি তখন তাদের প্রতিরক্ষা অবস্থান ছেড়ে গৌরীপুরে এগিয়ে এসে সুরমা নদীর উত্তর তীরে অবস্থানরত মুক্তিবাহিনীর সামনের চার্লি ও ডেল্টা কোম্পানিকে ঘিরে ফেলে ডেল্টা কোম্পানির ওপর আক্রমণ চালায়। তারা একই সঙ্গে সুরমার দক্ষিণে অবস্থানরত মুক্তিবাহিনীর আলফা ও ব্রাভো কোম্পানির ওপরও আর্টিলারি ফায়ার ও শেলিংয়ের মাধ্যমে প্রচণ্ড আক্রমণ শুরু
করে। ডেল্টা কোম্পানির ওপর প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টি করে পাকিস্তানিরা বারবার তাঁদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানাতে থাকে।

বিজ্ঞাপন

এই অবস্থায় প্রথম ইস্ট বেঙ্গলের ডেল্টা কোম্পানির মাঝখানের প্লাটুনের অধিনায়ক সুবেদার মুসা ওয়্যারলেসের মাধ্যমে ঊর্ধ্বতন অধিনায়ক এবং অন্য প্লাটুনগুলোর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চালিয়ে যান। তাঁর বাঁ পাশে ছিল সেনা কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াকার হাসানের (স্বাধীনতার পর বীর প্রতীক ও মেজর) নেতৃত্বাধীন প্লাটুন। তিনি তাঁর বাহিনী নিয়ে সেখানে গিয়ে পাকিস্তানিদের ওপর পাল্টা আঘাত হানেন। এই সুযোগে প্রায় ৩০ জন মুক্তিযোদ্ধা বুকে হেঁটে দ্রুত পাকিস্তানিদের ৫০ গজের মধ্যে চলে আসেন।

দুই পক্ষে ভয়াবহ যুদ্ধ হয়। ওয়াকার হাসানের অধীন মুক্তিযোদ্ধাদের অদম্য মনোবলের মুখে পাকিস্তানি সেনারা পালিয়ে যেতে থাকে।

পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পাঞ্জাব রেজিমেন্টের কোম্পানি কমান্ডার মেজর সারওয়ারসহ ৮৮ জন পাকিস্তানি সেনা এদিন নিহত হয়। ২৬ জনকে মুক্তিযোদ্ধারা আটক করতে সক্ষম হন। মুক্তিযোদ্ধাদের হতাহতের সংখ্যা ছিল ১৭।

যশোর শহরের উপকণ্ঠে পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের লড়াই এদিন অব্যাহত ছিল। হিলিতে চলে ট্যাংক লড়াই। চুয়াডাঙ্গার দর্শনা রেলস্টেশন এলাকায় প্রচণ্ড লড়াই চলছিল। কুষ্টিয়ার রসুলপুর ঘাটের কাছে মুক্তিযোদ্ধাদের তীব্র আক্রমণের মুখে পাকিস্তানি সেনারা রাজাপুরের দিকে পিছু হটে যায়। খুলনা জেলার বসন্তপুরের এদিন পতন হয় মুক্তিবাহিনীর হাতে।

ভারতের রাষ্ট্রপতির আহ্বান

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে বিভিন্ন রাজ্যের রাজ্যপালদের বার্ষিক সম্মেলনে বক্তৃতায় রাষ্ট্রপতি ভি ভি গিরি বলেন, পাকিস্তানের সামরিক শাসকদের যুদ্ধের হুমকি সত্ত্বেও আক্রান্ত না হলে ভারত যুদ্ধে জড়াবে না। ভারতের বিমানবাহিনী ক্ষুদ্র ন্যাট বিমান দিয়ে পাকিস্তানের তিনটি স্যাবর জেট বিমান যেভাবে ঘায়েল করেছে, সেখান থেকেই তাদের শিক্ষা নেওয়া উচিত।

ফিন্যান্সিয়াল টাইমস-এর সংবাদদাতা কেভিন রেফার্টি কলকাতা থেকে পাঠানো খবরে বলেন, অধিকাংশ পর্যবেক্ষক মনে করছেন, শিগগিরই বাংলাদেশ নামে একটি নতুন সার্বভৌম রাষ্ট্রের জন্ম হবে। যুদ্ধ ছাড়া অন্য কোনো সমাধানের কথা কেউ ভাবতে পারছেন না। সবার ধারণা, দ্রুতই যুদ্ধ শুরু হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইলিয়াম রজার্স এই দিন পাকিস্তানের সঙ্গে সীমান্ত সংঘর্ষের উত্তেজনা কমাতে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আবার ভারতকে অনুরোধ করেন। দেশটির পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র চার্লস ব্রে এই খবর দিয়ে বলেন, ইসলামাবাদে পাকিস্তানি নেতাদের সঙ্গেও এমন আলোচনা চালানো হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

পাকিস্তানের তৎপরতা

পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান ২৬ নভেম্বর পাকিস্তান পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভুট্টোর সঙ্গে আলোচনা করেন। এ সময়ে আর কেউ ছিলেন না। পরে তাঁদের সহকারীরা এসে যোগ দেন। আলোচনার বিষয় ছিল ভারতের আক্রমণের আশঙ্কা। ভুট্টো পরে সাংবাদিকদের বলেন, তাঁরা এটা নিয়েই উদ্বিগ্ন, অসামরিক সরকার গঠনের বিষয়ে তাঁরা এখন ভাবছেন না।

পশ্চিম পাকিস্তান সফররত পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ডা. আবদুল মোত্তালিব মালিকও ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে দেখা করেন।

গোটা পাকিস্তানে জরুরি অবস্থা জারির তিন দিন পর এদিন ইয়াহিয়া খান পাকিস্তানের দুই অংশে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ ওয়ালি) কার্যক্রম বেআইনি ঘোষণা করেন। এর পরপরই পশ্চিম পাকিস্তানে কয়েকজন ন্যাপ নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ছাড়া নিষিদ্ধঘোষিত নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি মাস্টার খান গুলকে পেশোয়ারে গ্রেপ্তার করা হয়।

পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক পার্টির সভাপতি নুরুল আমিন লাহোরে বলেন, জাতীয় পরিষদের মাধ্যমে ক্ষমতা হস্তান্তরের আগে তিনি জাতীয় সরকার গঠনের বিরোধী।

পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় অধিনায়ক এবং খ অঞ্চলের সামরিক আইন প্রশাসক লেফটেন্যান্ট জেনারেল এ এ কে নিয়াজি যশোর সফর করেন।

সূত্র: স্বাধীনতাসংগ্রামে প্রবাসী বাঙালি, আবদুল মতিন, র‌্যাডিক্যাল পাবলিকেশনস, লন্ডন, যুক্তরাজ্য; ইত্তেফাক, ঢাকা, ২৭ নভেম্বর ১৯৭১; আনন্দবাজার পত্রিকা, কলকাতা, ভারত, ২৭ ও ২৮ নভেম্বর ১৯৭১; দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ, লন্ডন, যুক্তরাজ্য, ২৭ নভেম্বর ১৯৭১; দ্য ফিন্যান্সিয়াল টাইমস, ২৭ নভেম্বর ১৯৭১

গ্রন্থনা: রাশেদুর রহমান